পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ? - পাসপোর্ট করার নিয়ম

পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ? একটি পাসপোর্ট পাওয়ার জন্য বেশ কয়েকটি ধাপ জড়িত, যা আপনার নাগরিকত্বের দেশের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। 
পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ? - পাসপোর্ট করার নিয়ম
সাধারণত, প্রক্রিয়াটির মধ্যে একটি আবেদনপত্র পূরণ করা, প্রয়োজনীয় নথি প্রদান করা, যেমন পরিচয় এবং নাগরিকত্বের প্রমাণ, পাসপোর্টের ছবি তোলা এবং প্রযোজ্য ফি প্রদান করা অন্তর্ভুক্ত। আসুন প্রতিটি দিকটির বিশদ বিবরণ দেখি:

আরো পড়ুন: ঘর গোছানোর টিপস

পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে

1 ➪ যোগ্যতা:

পাসপোর্টের জন্য আবেদন করার আগে, নিশ্চিত করুন যে আপনি আপনার দেশের পাসপোর্ট প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ দ্বারা নির্ধারিত যোগ্যতার মানদণ্ড পূরণ করেছেন। সাধারণ প্রয়োজনীয়তার মধ্যে রয়েছে নাগরিকত্ব, পরিচয় প্রমাণ এবং বয়স।

2 ➪ আবেদন ফর্ম:

বেশিরভাগ দেশেই নির্দিষ্ট পাসপোর্টের আবেদনপত্র অনলাইনে বা পাসপোর্ট অফিসে পাওয়া যায়। আপনার ব্যক্তিগত বিবরণ সহ সঠিকভাবে ফর্মটি পূরণ করুন। 
প্রথমে পাসপোর্ট বিভাগের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে (e-passport.gov.bd) গিয়ে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণের পর আবেদন ফরম প্রিন্ট করতে হবে। জমা দেওয়ার আগে কোনো ত্রুটি বা বাদ পড়ার জন্য দুবার চেক করুন।

3 ➪ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র : 

প্রয়োজনীয় নথি সংগ্রহ করুন যেমন:
➪ ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি।
➪ জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটোকপি।
➪ ৪ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি ( কান দেখা যায় এমন ছবি)
➪ পূর্বের পাসপোর্টের ফটোকপি (যদি থাকে)।
➪ আবেদনকারী সরকারী চাকুরিজীবী হন, তবে এনওসি (NOC) প্রয়োজন হতে পারে।
➪ বিদ্যুৎ বিলের মূল কপি ( ভেরিফিকেশনে লাগে)
➪ নাগরিক সনদ (ভেরিফিকেশনে লাগে)

4 ➪ পাসপোর্ট ফটো:

আপনার দেশের পাসপোর্ট এজেন্সি দ্বারা নির্ধারিত মান পূরণ করে তোলা পাসপোর্ট ফটো গুলি পান৷ এই ফটো গুলি সাম্প্রতিক হতে হবে এবং সঠিকভাবে আপনার বর্তমান চেহারা প্রতিনিধিত্ব করে।

৫ ➪ ফি প্রদান:

পাসপোর্ট অ্যাপ্লিকেশনে সাধারণত ফি জড়িত থাকে, যা পাসপোর্টের ধরন (নিয়মিত, ত্বরান্বিত, ইত্যাদি), আবেদনকারীর বয়স এবং প্রক্রিয়াকরণের সময়ের মতো বিষয়গুলির উপর ভিত্তি করে পরিবর্তিত হয়। আপনি স্বীকৃত অর্থপ্রদানের পদ্ধতির মাধ্যমে সঠিক পরিমাণ অর্থ প্রদান করেছেন তা নিশ্চিত করুন। 

*ফি*: পাসপোর্ট ফি অনলাইনে বা নির্দিষ্ট ব্যাংকের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

*ফি রসিদ*: ফি জমা দেওয়ার পর রসিদটি সংরক্ষণ করতে হবে।

6 ➪ জমা:

নির্ধারিত পাসপোর্ট অফিস বা এজেন্সিতে সমস্ত প্রয়োজনীয় নথি এবং ফি সহ আপনার পূরণকৃত আবেদনপত্র জমা দিন।

ফিঙ্গারপ্রিন্ট এবং ছবি : পাসপোর্ট অফিসে গিয়ে আঙ্গুলের ছাপ এবং ছবি তোলা হবে।

7 ➪ প্রসেসিং টাইম:

একটি পাসপোর্ট আবেদন প্রক্রিয়াকরণের সময় দেশ অনুসারে পরিবর্তিত হয় এবং কয়েক সপ্তাহ থেকে কয়েক মাস পর্যন্ত হতে পারে।

8 ➪ সাক্ষাৎকার বা অতিরিক্ত পদক্ষেপ:

কিছু ক্ষেত্রে, আবেদনকারীদের একটি সাক্ষাত্কারে যোগ দিতে বা অতিরিক্ত ডকুমেন্টেশন প্রদান করতে হতে পারে। প্রথমবার পাসপোর্ট আবেদনকারীদের জন্য বা আবেদনের বৈধতা নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে এমন ক্ষেত্রে এটি বেশি সাধারণ।

পুলিশ ভেরিফিকেশন : সব প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের এক সেট মূল কপি ও এক সেট ফটোকপি সাথে রাখতে হবে। যে অফিসার আসেন তিনি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা নিতে পারে।  

9 ➪ ডেলিভারি:

একবার আপনার পাসপোর্টের আবেদন অনুমোদিত এবং প্রক্রিয়া হয়ে গেলে, আপনি আপনার নতুন পাসপোর্ট মেইলের মাধ্যমে বা নির্দিষ্ট স্থানে পিক-আপের জন্য পাবেন। আপনি অবিলম্বে এবং নিরাপদে এটি সংগ্রহ নিশ্চিত করুন. নির্দিষ্ট পাসপোর্ট অফিস থেকে পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে হবে ( যার পাসপোর্ট তাকেই যেতে হবে অথবা রক্তের সম্পর্কের কেউ নিতে পারবে তবে তার NID সাথে থাকা জরুরি) 

আরো পড়ুন : কলা খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

10 ➪ বৈধতা এবং পুনর্নবীকরণ:

আপনার দেশের প্রবিধানের উপর নির্ভর করে পাসপোর্টের একটি নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে, সাধারণত 5 থেকে 10 বছরের মধ্যে। আপনার পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হওয়ার তারিখ একটি নোট করুন এবং ভ্রমণের ব্যাঘাত এড়াতে পুনর্নবীকরণের জন্য আগাম পরিকল্পনা করুন।

পাসপোর্ট প্রাপ্তির জন্য আপনার দেশের পাসপোর্ট ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষের দ্বারা নির্ধারিত নির্দিষ্ট প্রয়োজনীয়তা গুলির বিশদ বিবরণের প্রতি যত্নবান মনোযোগ এবং আনুগত্য জড়িত। উপরে বর্ণিত পদক্ষেপ গুলি অনুসরণ করে এবং সমস্ত প্রয়োজনীয় নথি এবং ফি সঠিকভাবে জমা দেওয়া হয়েছে তা নিশ্চিত করে, আপনি সফলভাবে আপনার পাসপোর্ট পেতে পারেন এবং সহজেই আপনার ভ্রমণ শুরু করতে পারেন। "পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে ??" এটা জেনে গেছেন! তো তাহলে দেরি কিসের, আগাম পরিকল্পনা করতে ভুলবেন না এবং শেষ মুহূর্তের জটিলতা এড়াতে প্রক্রিয়াকরণের জন্য পর্যাপ্ত সময় দিন। শুভ ভ্রমন!

শেষ কথা ➡️ এই পোস্টে আমরা আপনাদেরকে জানিয়েছি যে, পাসপোর্ট করতে কি কি লাগে এবং পাসপোর্ট করার সকল নিয়মাবলী। আপনাদের  মতামত এবং প্রতিক্রিয়া অত্যন্ত মূল্যবান এবং আমরা সব সময় তাদের স্বাগত জানাই। এই রকম আরো পোস্ট চাইলে কমেন্ট করে আমাদের জানান, আপনার সাথে দেখা হবে পরবর্তী পোস্টে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

আমার জীবন বিডিতে নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন, প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url